কেরাত মিলানোর ক্ষেত্রে তিন আয়াত বিশিষ্ট সূরার কিছু অংশ বাদ দেয়া।

কেরাত মিলানোর ক্ষেত্রে তিন আয়াত বিশিষ্ট সূরার কিছু অংশ বাদ দেয়া।

Esteem Soft Limited   10 February 2020   442 Last Updated : 11:04 PM 21 March 2020

প্রশ্ন: ৬৫/১৪৪০,২০২০
ইমাম কেরাত মিলানোর ক্ষেত্রে সূরা নসর পড়ার সময় " বিহামদি রাব্বিকা" শব্দটি বাদ দিয়েছে, এখন আমার জানার বিষয় হলো যেহেতু সূরা নসর
তিন আয়াত বিশিষ্ট সূরা, তাই এখন নামাজ শুদ্ধ হয়েছে কিনা?
নিবেদক 
ফাহাদ
খুলশী

উত্তর: ৬৫/১৪৪০,২০২০

بسم الله الرحمن الرحيم.
الجواب باسم ملهم الصدق والصّواب.

কুরআন হাদীস ও ফিকহের নির্ভরযোগ্য কিতাব সমূহ অধ্যয়নের একথা জানা যায় যে, নামায শুদ্ধ হওয়ার জন্য তিন আয়াত পড়া জরুরী নয়, বরং কোরআন শরীফের সবচেয়ে ছোট তিন আয়াত (যা ৩০ হরফ) পরিমাণ পড়া জরুরী। অতএব যদি বড় এক আয়াত বা দুই আয়াত পড়া হয় যাতে ৩০ হরফ আছে, তবে নামাজ শুদ্ধ হয়ে যাবে। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত সূরতে ইমাম সাহেব " বিহামদি রাব্বিকা" শব্দ বাদ দেওয়ার পরেও যেহেতু ৩০ হরফ থেকে বেশি পড়েছেন এবং এতে অর্থে এমন কোনো পরিবর্তন আসেনি যার কারণে নামাজ নষ্ট হয়ে যায় তাই নামাজ শুদ্ধ হয়েছে।

Last Updated : 11:04 PM 21 March 2020